বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ
স্থাপিত : ১৯৯৬
Chairman's Message
অধ্যাপক মো: আনোয়ার হোসেন 

গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিষয়ে শিক্ষা শুধুমাত্র নারীদের আলোকিত করে না। সে আলো তাঁদের মধ্য দিয়ে ছড়িয়ে পড়ে সর্বত্র। পরিবার, সন্তান-সন্ততি, বন্ধু-স্বজন, সবাই সে আলোতে বিকশিত হয়। তাতে উপকৃত হয় সমাজ ও মাতৃভূমি। 
মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত বাংলাদেশ এক অপার সম্ভাবনার দেশ হিসেবে এ পৃথিবীতে জায়গা করে নিয়েছে। এই সম্ভাবনার মূল শক্তি এদেশের অদম্য ও পরিশ্রমী মানুষ। এমন মানুষের কাতারে নারীরা পুরুষের সাথে সমান তালে অবদান রাখছে। অনেক ক্ষেত্রে এই অবদান পুরুষের চাইতে বেশি। তার কারণও আছে। সন্তান ধারণ ও তার পরির্পূণ বিকাশে নারীরা মূখ্য ভূমিকা পালন করে। গৃহ-কর্মে তাঁদের ভূমিকাই প্রধান। নারীরা এখন আর অবরোধবাসিনী নয়। গৃহের  বাইরে নানা গুরুত্বপূর্ণ কর্মক্ষেত্রে নারীরা কাজ করছে পুরুষের পাশাপাশি। সে কারনেই বাংলাদেশ সম্ভাবনার দেশ হয়েছে।
পরিবার-সমাজ-রাষ্ট্র সর্বত্র আমাদের সম্ভাবনাকে পরিব্যাপ্ত করতে হলে নারীদের আরো যোগ্য করে তুলতে হবে। সে লক্ষ্যেই ১৯৯৬ সালে একগুচ্ছ নিবেদিতপ্রাণ শিক্ষক প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ। নানা বাধা-বিপত্তি মোকাবেলা করে ধীর কিন্তু স্থির লক্ষ্যে তাঁরা এগিয়ে গেছেন। তাঁদের সে অভিযাত্রায় যুক্ত হয়েছেন আরো শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী। সাহায্যের হাত বাড়িয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বাংলাদেশ সরকার। সাড়া দিয়েছেন বিদ্যোৎসাহী আলোকিত মানুষজনেরা। সরকারী এমপিও ভুক্ত ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাদানকল্প কলেজ হবার সম্মান পেয়েছে কলেজটি। 
বেসরকারি গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের মধ্যে শুধুমাত্র বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজটি কোন ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান নয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ গঠিত গভর্নিংবডি দ্বারা কলেজটি পরিচালিত হয় এবং কলেজের সকল আয় কলেজের জন্য ব্যয় হয়।
এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মূল দর্শন হচ্ছে সকল কাজে স্বচ্ছতা ও সততা। এর সাথে যুক্ত হয়েছে শিক্ষাদানে ও প্রতিষ্ঠানের অগ্রগতিতে শিক্ষক-ছাত্রী-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একযোগে কাজ করার অনুকূল পরিবেশ। তার ফলও পাওয়া গেছে। বাংলাদেশ অর্জনের সুবর্ণজয়ন্তী বছর ২০২১ সালে বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজ পালন করবে প্রতিষ্ঠার পঁচিশ বছর-রোপ্যজয়ন্তী। এ সময়ে বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে আমাদের কলেজটি একটি আদর্শস্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে আপন জায়গা করে নিয়েছে। তার স্বাক্ষর পাওয়া যাচ্ছে ছাত্রীদের পরীক্ষার ফলাফলে, সম্মিলিত মেধা তালিকায়। আমাদের ছাত্রীরা মেধা ও যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখছে বিদ্যায়তনে ও তার বাইরেও। 
বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করি।

Total Views : 732
    Suggested Video
Messages
Colonel Mohammad Wahidur Rahman, afwc,psc
Administration / Chairman's Message

অধ্যাপক মো: আনোয়ার হোসেন 
Total Views : 732
Related Topics